প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আশ-শিহাব পরিষদ ইসলামের বহুমুখী খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছে। আবনা-ফুজালাদের সম্পর্কন্নোয়নের পাশাপাশি এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি সেমিনারের আয়োজন করেছে এই পরিষদ। বেশ কয়েকটি প্রকাশিত গ্রন্থ এবং স্মারকও রয়েছে এই পরিষদের।

১৯৯০ সালের ৯ ফেবরুয়ারী আশ-শিহাব পরিষদের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় ইসলামী অর্থনীতি শীর্ষক একটি সেমিনার। ১৯৯৩ সালের ৯ অক্টোবর আশ-শিহাব পরিষদ আয়োজন করে ‘মাতৃভাষা চর্চা, সময়ের অপরিহার্য দাবী’ শীর্ষক একটি সময়োপযোগী সেমিনার। এতে মাওলানা ফরীদ উদ্দিন মাসউদ, মাওলানা আব্দুল বাসিত খানসহ দেশ বরেণ্য চিন্তাবীদগণ বক্তব্য দেন। ১৯৯৬ সালের ১০ সেপ্টেম্বর আশ-শিহাব পরিষদের উদ্যোগে ‘দ্বীনের সংরক্ষণ: উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।এতে আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেনÑ আল্লামা মুহিউদ্দিন খান, আল্লামা ইসহাক ফরিদীর মাওলানা শওকত আলী প্রমুখ। ২০০০ সালের দশশালা দস্তারবন্দীতে আশ-শিহাবের পক্ষ থেকে একটি সমৃদ্ধ স্মারক বের হয়। ২০০৩ সালে  মে আশ-শিহাবের পক্ষ থেকে ‘শায়খুল হিন্দে রাহ ‘র রাজনৈতিক চিন্তাধারা’ শীর্ষক একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়,  এতে মাওলানা কাজি মুতাসিম বিল্লাহ, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মাওলানা নুরুল ইসলাম খান, মাওলানা  উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা ইসহাক ফরিদী, মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী প্রমুখ বরেণ্য ইসলামী চিন্তাবীদগণ বক্তব্য রাখেন। ২০১১ সালের দস্তারবন্দী সম্মেলনে আশ-শিহাবের পক্ষ থেকে ‘সেই মানুষটির খোঁজে’ মাওলানা আব্দুল হাই রাহ. এরটি জীবনী-স্মারক বের হয়। ২০১৩ সালের ৭ সেপ্টেম্বর সিলেট ইউনাইটেড সেন্টারে ‘কুরআন-সুনাœ্হ ‘র আলোকে হানাফী মাযহাব’ শীর্ষক একটি সেমিনারের আয়োজন করে আশ-শিহাব পরিষদ। এতে মাওলানা আব্দুল মালেক. ড. আ.ফ.ম খালিদ হোসাইন, মুফতি রফিকুল ইসলাম আল-মাদানী, মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরীসহ বিদগ্ধ ইসলামী চিন্তাবীদগণ আলোচনা পেশ করেন।